ধর্ম

টাকা দিয়ে সদকাতুল ফিতর আদায় করা যাবে?

  প্রতিনিধি ৩ এপ্রিল ২০২৪ , ৫:১৮:৩৮ প্রিন্ট সংস্করণ

টাকা দিয়ে সদকাতুল ফিতর আদায় করা যাবে?

প্রত্যেক সামর্থ্যবান মুসলমানের জন্য নিজের ও পোষ্য পরিজন তথা অপ্রাপ্তবয়স্ক সন্তান এবং গোলাম বাদীদের পক্ষ থেকে সদকাতুল ফিতর (ফিতরা) আদায় করা ওয়াজিব।

রমজানের শেষ দিন সূর্যাস্তের পর থেকে ঈদের নামাজ আদায় করতে যাওয়ার পূর্ব পর্যন্ত সময়ের মধ্যে সদকাতুল ফিতর আদায় করা মুস্তাহাব বা উত্তম। ঈদের দু-এক দিন আগে আদায় করা জায়েজ। তবে বেশি আগে বা ঈদের পরে আদায় করা অনুচিত।

সদকাতুল ফিতর আদায়ের হিকমত ও মাসলাহাত (অন্তর্নিহিত কারণ ও কল্যাণ) হলো—

ক. অনর্থক, অশালীন কথা ও কাজে রোজার যে ত্রুটি-বিচ্যুতি হয় তার ক্ষতিপূরণ
খ. ঈদুল ফিতরের দিন নিঃস্ব ব্যক্তিদের আহার জোগানো। যাতে ঈদ আনন্দ সার্বজনীন হয়
গ. আল্লাহর নেয়ামতের শুকরিয়া জ্ঞাপন। বিশেষত রমজান ও রোজা পূর্ণ করার নেয়ামতের শুকরিয়া 

সদকাতুল ফিতরের পরিমাণ সম্পর্কিত হাদিস ও সুন্নাহে দুটি মাপকাঠি নির্ধারণ করা হয়েছে:

আর তা হলো— যব, খেজুর, পনির ও কিসমিস দিয়ে আদায় করলে এক সা’ তথা ৩ কিলো ২৭২ গ্রাম। আর গম দ্বারা ১ কিলো ৬৩৬ গ্রাম।

হজরত আবু সাঈদ খুদরি (র) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমরা এক সা’ পরিমাণ খাদ্য অথবা এক সা’ পরিমাণ জব অথবা এক সা’ পরিমাণ কিসমিস অথবা এক সা’ পরিমাণ পনির দিয়ে জাকাতুল ফিতর তথা সাদকাতুল ফিতর আদায় করতাম। (বুখারি, হাদিস নং ১৫০৬)

শরিয়তের দলিল দ্বারা এটাও প্রমাণিত যে, উপরোক্ত খাদ্যদ্রব্যের পরিবর্তে সেগুলোর মূল্য আদায় করার ও অবকাশ রয়েছে। আমরা এর স্বপক্ষে কয়েকটি উদাহরণ তুলে ধরছি। 

হজরত যুহাইর (রহ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি হজরত ইসহাক (রহ) থেকে শুনেছি, তিনি বলেন— আমি সাহাবায়ে কেরামকে (র) এ অবস্থায় পেয়েছি যে, তারা রমজানে সদকাতুল ফিতর খাবারের পরিবর্তে টাকা দিয়ে আদায় করতেন। (ইবনে আবি শাইবা, হাদিস নং ১০৩৭১) 

২. হজরত হাসান বসরি (রহ) বলেন, টাকা দ্বারা সদকাতুল ফিতর আদায় করার ক্ষেত্রে কোনো সমস্যা নেই।  (ইবনে আবি শাইবা, হাদিস নং ১০৩৭০) 

৩.  অনুরূপভাবে হজরত ওমর ইবনে আব্দুল আজিজের (রহ) চিঠি— হজরত কুররা (রহ) বলেন, আমাদের কাছে হজরত ওমর বিন আব্দুল আজিজের (রহ) চিঠি এসেছে যে, সদকাতুল ফিতরের ক্ষেত্রে প্রত্যেক মানুষ থেকে নিসফে সা’ খাবার অথবা অর্ধেক দেরহামের মূল্য গ্রহণ করা হবে । ( ইবনে আবি শাইবা, হাদিস নং ১০৩৬৯)   

ইমাম বুখারির (রহ) অন্যতম শিক্ষক হলেন ইমাম আবু বকর ইবনে আবি শাইবা (রহ)। তিনি তার জগৎ বিখ্যাত কিতাব মুসান্নাফে ইবনে আবি শাইবা এর জাকাত অধ্যায়ে সদাকাতুল ফিতর টাকা দ্বারা আদায় করা সংক্রান্ত একটি পরিচ্ছেদ এনেছেন এবং পাঁচটি হাদিস এনে প্রমাণ করেছেন যে, সাহাবায়ে কেরাম টাকা দিয়ে সদকাতুল ফিতর আদায় করেছেন।

এ ছাড়া ইমাম বুখারি (রহ) তার সহিহ বুখারিতে হজরত মুয়াজ ইবনে জাবালের (র) বক্তব্য উল্লেখ করেছেন, তিনি ইয়ামেনবাসীদের বলেন, তোমরা সদকার মধ্যে খাদ্যদ্রব্যের পরিবর্তে কাপড় নিয়ে আসো। কেননা, এটা তোমাদের জন্য অধিকতর সহজ এবং মদিনার সাহাবীগণের জন্যও অধিক উপযোগী। (বুখারি, হাদিস নং ১১৪৭) 

ইমাম আবু হানিফা (রহ) এ দৃষ্টিকোণ থেকেই বলেছেন— টাকা দিয়ে আদায় করা উত্তম। কারণ এটি মানুষের জন্য সহজ ও উপকারী। 

আল্লামা ইবনু রুশাইদ (রহ) বলেন, এ মাসায়ালার ক্ষেত্রে ইমাম বুখারি হানাফিদের সহমত পোষণ করেছেন। (ফতহুল বারি, ইবনে হাজার : ৩/৩১২) 

মোটকথা, সাহাবায়ে কেরাম ও সালাফদের কর্ম ও বক্তব্য দ্বারা স্পষ্ট যে, টাকা দ্বারা সদকাতুল ফিতর আদায় করা যায়; বরং ক্ষেত্র বিশেষ টাকার দ্বারা আদায় করা উত্তম।