দেশজুড়ে

বিএনপির উদ্দেশ্য গণতন্ত্রকে ভূলুণ্ঠিত করা

  প্রতিনিধি ৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩ , ৩:১০:১৭ প্রিন্ট সংস্করণ

বিএনপির উদ্দেশ্য গণতন্ত্রকে ভূলুণ্ঠিত করা

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপির উদ্দেশ্য হচ্ছে সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা ও গণতন্ত্রকে ভূলুণ্ঠিত করা, ধূলিসাৎ করা। ২০১৪ সালে তারা সেই অপচেষ্টা করেছিল, ২০১৮ সালে নির্বাচনে গিয়েও নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করেছে। এখন সেই অপচেষ্টা চালালে দেশের জনগণ তাদের প্রতিহত করবে।

গতকাল রবিবার দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে সাংবাদিকরা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর ‘যেদিন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে সেদিনই হবে এ সরকারের অন্তিম যাত্রা’ বক্তব্য নিয়ে প্রশ্ন করলে তথ্যমন্ত্রী বলেন, সংবিধান অনুযায়ী আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনের তফসিল বা নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা স্বাধীন নির্বাচন কমিশনের এখতিয়ার। আমরা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সে অনুযায়ী নির্বাচন করার জন্য প্রস্তুত আছি।

নির্বাচনে পররাষ্ট্রনীতির প্রভাব আছে কিনা এ প্রশ্নে তথ্যমন্ত্রী হাছান বলেন, নির্বাচন হয় দেশে, ভোট দেয় দেশের জনগণ। এটা পররাষ্ট্রনীতির বিষয় নয়। আর পররাষ্ট্রের ক্ষেত্রে আমরা বঙ্গবন্ধুর পররাষ্ট্রনীতি অনুসরণ করে সব দেশের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রেখেই দেশকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই।

ড. ইউনূসের বিচার নিয়ে বিদেশিদের চিঠির প্রশ্নে সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, দেখুন কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়। এ দেশে সাবেক প্রধানমন্ত্রীর বিচার হয়েছে এবং তিনি সাজা ভোগ করছেন। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে নোবেল লরিয়েটের বিচার হয়েছে, তারা জেলও খেটেছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিচার হচ্ছে। আমাদের বিচার প্রক্রিয়া অত্যন্ত স্বচ্ছ।

মতবিনিময়ের শুরুতে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ তার সদ্যসমাপ্ত লন্ডন সফরের বিষয়ে কথা বলেন। মন্ত্রী ৫০টিরও বেশি দেশের ২৮২ জন প্রতিনিধি সমন্বয়ে লন্ডনে অনুষ্ঠিত পার্লামেন্টারি সিকিউরিটি ইন্টেলিজেন্ট ফোরামের (পিএসআইএফ) সম্মেলনে যোগদানের পাশাপাশি ফোরামের চেয়ারম্যান যুক্তরাষ্ট্রের সিনিয়র কংগ্রেসম্যান রবার্ট পিটেনজার কো-চেয়ার যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রবিষয়ক কমিটির সভাপতি এলিসিয়া কিয়ার্নসের সঙ্গে তার বৈঠকের কথা জানান।

পাশাপাশি যুক্তরাজ্যের মিনিস্টার অব স্টেট ফর মিডিয়া, ট্যুরিজম অ্যান্ড ক্রিয়েটিভ ইন্ডাস্ট্রিজ স্যার জন হুইটিংডেল, যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসম্যান ফ্রেঞ্চ হিল, বাংলাদেশ বিষয়ে যুক্তরাজ্য পার্লামেন্টের অল পার্টি গ্রুপের সভাপতি রুশনারা আলী এমপি প্রমুখের সঙ্গে বৈঠকগুলোতে তারা রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবাসনে আন্তর্জাতিক চাপ বৃদ্ধি বিষয়ে সহযোগিতার কথা বলেছেন, তা জানান ড. হাছান।