দেশজুড়ে

মোরেলগঞ্জে নিয়োগ বানিজ্য বন্ধের দাবিতে সোচ্চার এলাকাবাসি

  প্রতিনিধি ৬ জুন ২০২০ , ৭:২৬:১৭ প্রিন্ট সংস্করণ

শামীম আহসান মল্লিক, মোরেলগঞ্জ (বাগেরহাট) : বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে হাজ্বী রাজাউল্লাহ স্মৃতি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অফিস সহকারি কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে নিয়োগ বানিজ্য বন্ধে সোচ্চার হয়ে উঠেছে এলাকাবাসি। করোনায় যখন সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান   সামাজিক যোগাযোগ অনেকটা বন্ধ সে সময়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে গোপনে নিয়োগ প্রক্রিয়া অপচেষ্টা চালানোর অভিযোগে স্থানীয় সংসদ সদস্য, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, জেলা শিক্ষা অফিসারসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দায়ের হয়েছে। এলাকাবাসি পদে পুনরায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে স্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় মেধাভিত্তিক নিয়োগ দেয়ার দাবি জানিয়েছে।

অভিযোগে জানা গেছে, বিদ্যালয়ে অফিস সহকারি কাম কম্পিউটার পদে ১১ মে অপারেটর পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ শেষ হচ্ছে ১৪ জুন। অপরদিকে প্রধান শিক্ষক অবসরে যাচ্ছেন চলতি মাসের ১৫ জুন। আর কারনেই দুজনে ব্যক্তিগতভাবে লাভবান হওয়ার জন্য তড়ঘরি নিয়োগ প্রক্রিয়ার অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

আব্দুর রহমান খান, ইব্রাহিম শেখ, রেজাউল ইসলাম জানান, তারা সহ তাদের আত্মীয় স্বজন অফিস সহকারি কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে প্রার্থী হয়ে নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহন ইচ্ছা পোষণ করেছিল। কিন্তু গোপনে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করায় তারা আবেদন করতে ব্যর্থ হয়েছে। পদে আবেদন প্রত্যাশী রেজাউল ইসলাম বলেন, তাদের পরিবার বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা। পাশপাশি বিদ্যালয় সংলগ্ন বাড়ি হওয়া সত্ত্বেও তারা নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি বিষয়ে কিছুই জানেনা।

অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক হাওলাদার ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সদস্য আবুল কালাম আজাদ বলেন, ইতোপূর্বে বিদ্যালয়ে সহকারি প্রধান শিক্ষক, সহকারি শিক্ষক, লাইব্রেরিয়ানসহ ৫টি পদে অযোগ্য ব্যক্তিদের নিয়োগ দিয়ে বিদ্যালয়ের উন্নয়নের নামে নেয়া হয়েছে মোটা অংকের অর্থ। অথচ বিদ্যালয়টিতে লাগেনি কোন উন্নয়নের ছোঁয়া।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নজরুল ইসলাম খান জানান, একটি মহল অনৈতিক প্রক্রিয়ায় সুবিধা গ্রহনে ব্যর্থ হয়ে বিভিন্ন দপ্তরে মনগড়া অভিযোগ দিয়েছে পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির পরেও করোনার কারনে স্থানীয়ভাবে ব্যাপক প্রচারের জন্য  মাইকিংও করা হয়েছে। স্বচ্ছতার সাথেই সবকিছু করা হচ্ছে। ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম বাদশা বলেন, ইতোপূর্বে যেসব নিয়োগ হয়েছে তা মেধাতালিকার ভিত্তিতেই হয়েছে। অর্থের বিনিময়ে নয়। এবারেও অফিস সহকারি পদে নিয়ম অনুযায়ী মেধাতালিকার ভিত্তিতে প্রার্থী নিয়োগ পাবে। নিয়োগ প্রক্রিয়া বন্ধে স্থানীয়রা সংসদ সদস্যদের বরাবরে লিখিত আবেদন করেন। আবেদনের প্রেক্ষিতে বিষয়টি তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য জেলা শিক্ষা অফিসারকে জোর সুপারিশ করছেন সংসদ সদস্য এ্যাড. আমিরুল আলম মিলন। 

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান বলেন, অভিযোগের প্রেক্ষিতে জেলা শিক্ষা অফিসার বিষয়টি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

আরও খবর

Sponsered content

Powered by